পণ্যমূল্যের উত্তাপে নাকাল হচ্ছে ভোক্তা

পণ্যমূল্যের উত্তাপে নাকাল হচ্ছে ভোক্তা

পণ্যমূল্যের উত্তাপে নাকাল হচ্ছে ভোক্তা
ছবি: সংগৃহীত

বৈচিত্র্য ডেস্ক:নিত্যপণ্যের বেপরোয়া উর্ধ্বগতির কারণে অসহায় হয়ে পড়ছে ভোক্তারা। ব্যসায়ীদের কারসাজিতে পেঁয়াজের পর চাল এরপর আলুর দাম লাগামহীন। এই তিনটি নিত্যপণ্য কিনতে প্রায় দ্বিগুণ বেশি খরচ গুনতে হচ্ছে ভোক্তাকে। পাশাপাশি পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও অধিকাংশ সবজির দাম ৮০ টাকার ওপরে। একাধিক সবজির দর ১০০ টাকার ওপরে।

সঙ্গে ডাল, ভোজ্যতেল, ডিমসহ বেশির ভাগ নিত্যপণ্য বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে এসব জিনিসপত্র কিনতে ভোক্তারা প্রতিনিয়ত দিশেহারা হয়ে পড়ছে। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়ছে নিম্ন ও সীমিত আয়ের মানুষ।

এদিকে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এবং বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) তথ্য অনুসারে- করোনার কারণে বাংলাদেশে নতুন করে এক কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছে। এ সময় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে স্থবিরতার কারণে অধিকাংশ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। আর দেশের এমন পরিস্থিতিতে নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক দামে মানুষ আরও বেশি অসহায় হয়ে পড়ছে।

রাজধানীর নয়াবাজার, মালিবাগ কাঁচাবাজার ও জিনজিরা বাজারে শুক্রবার খুচরা চাল বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ দিন প্রতি কেজি মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ৫৬-৫৮ টাকা। যা ২০ দিন আগে ছিল ৫৩-৫৪ টাকা। বিআর ২৮ চাল বিক্রি হয়েছে ৫৫ টাকা, আগে ছিল ৪৬-৪৭ টাকা। মোটা চালের মধ্যে স্বর্ণা জাতের প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৫০-৫২ টাকা, আগে ছিল ৪০-৪২ টাকা।

একইদিন রাজধানীর সর্ববৃহৎ পাইকারি আড়ত বাদামতলী ও কারওয়ান বাজারে পাইকারি পর্যায়ে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৭০০ টাকা। যা ২০ দিন আগে ছিল ২ হাজার ৫৫০ টাকা। বিআর ২৮ চাল বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৩৫০ টাকা, আগে ছিল ২ হাজার ২০০ টাকা। আর স্বর্ণা জাতের চাল বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৩০০ টাকা, আগে ছিল ২ হাজার ৫০ টাকা।

এবার সরকার বোরো ধান সংগ্রহ ঠিকমতো করতে পারেনি। মিলাররা যে যেভাবে পেরেছে ধান কিনেছে। তাই বাজার এখন তাদের নিয়ন্ত্রণে। যে কারণে মিলাররা সিন্ডিকেট করে সব ধরনের চালের দাম বাড়িয়েছে।

জানা যায়, সরকারের পক্ষ থেকে চালের দাম নির্ধারণ করে দেয়া হলেও মিলাররা তা অমান্য করছে। তারা তাদের ক্ষমতা দেখিয়ে সরকারের বেঁধে দেয়া দামে চাল বিক্রি করছে না। যার কারণে বাজারে চালের দাম কমছে না।

রাজধানীর খুচরা বাজারে ৫ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল কোম্পানিভেদে সর্বোচ্চ ৫২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে, যা এক মাস আগে ছিল সর্বোচ্চ ৫১০ টাকা। প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন বিক্রি হয়েছে ৯৪ টাকা, আগে ছিল ৮৮ টাকা। প্রতি লিটার পাম অয়েল (সুপার) বিক্রি হয়েছে ৮৯ টাকা, আগে ছিল ৭৫ টাকা। প্রতি কেজি আমদানি করা আদা বিক্রি হয়েছে ২৪০-২৬০ টাকা, এক মাস আগে ছিল ২২০-২৪০ টাকা। দেশি আদা প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১৬০ টাকা, আগে ছিল ১৪০-১৫০ টাকা।

এছাড়া খুচরা বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০-১০০ টাকা। যা ১০ দিন আগে ছিল ৮৫-৯০ টাকা। আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭০-৮০ টাকা, আগে ছিল ৬৫-৭০ টাকা। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হয়েছে ৪৫-৫০ টাকা, যা এক মাস আগে ছিল ৩৫ টাকা। প্রতি কেজি প্যাকেটজাত ময়দা বিক্রি হয়েছে সর্বোচ্চ ৪৮ টাকা, আগে ছিল ৪৪ টাকা। মসুর ডাল প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৯৫ টাকা। যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা।

এদিকে শুক্রবার সপ্তাহের ব্যবধানে সবজির দাম কিছুটা কমলেও এখনও একাধিক সবজি ১০০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে। এদিন খুচরা বাজারে প্রতি কেজি টমেটো বিক্রি হয়েছে ১২০-১৪০ টাকা। প্রতি কেজি গাজর ৮০-১০০ টাকা, শিম ৮০-১২০ টাকা, শসা ৯০-১০০ টাকা। এছাড়া প্রতি কেজি বরবটি বিক্রি হয়েছে ৮০-১০০ টাকা, বেগুন ৮০-১১০, উস্তে প্রতি কেজি ৮০-১০০ টাকা।